মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
ইউনিয়ন ভূমি অফিস

বাংলাদেশের প্রতিটি ইউনিয়নে একটি ইউনিয়ন ভূমি অফিস রয়েছে। এই অফিস ভূমি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন ভূমি সংস্কার বোর্ড, বিভাগীয় পর্যায়ে বিভাগীয় কমিশনার, জেলা পর্যায়ে জেলা প্রশাসক এবং উপজেলা পর্যায়ে সহকারি কমিশনার (ভূমি) এর অধীন কর্মরত একটি দপ্তর, যার মাধ্যমে ইউনিয়ন বা তৃণমূল পর্যায়ে ভূমি সংক্রান্ত বিভিন্ন সেবা প্রদান করা হয়ে থাকে। একজন ইউনিয়ন সহকারী কর্মকর্তা (আগে তহশিলদার বলা হতো) কিংবা উপ-সহকারী কর্মকর্তা (সহকারী তহশিলদার) এর অধীনে এই দপ্তরের কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে থাকে।

দপ্তর প্রধানের পদবীঃ-  ই্উনিয়ন ভূমি সহকারি কর্মকর্তা।

অফিসটির অবস্থান-  উপজেলা থেকে ১৫ কি: মি: দক্ষিণে ঢাকা-কুমিল্লা মহাসড়কের উত্তরদিকে ইউনিয়ন ভূমি অফিসটি অবস্থিত।

অফিস ঠিকানাঃ- ইউনিয়ন ভূমি অফিস, বরকামতা ইউপি ভবন, দেবিদ্বার, কুমিল্লা।

  • কী সেবা কীভাবে পাবেন
  • প্রদেয় সেবাসমুহের তালিকা
  • সিটিজেন চার্টার
  • সাধারণ তথ্য
  • সাংগঠনিক কাঠামো
  • কর্মকর্তাবৃন্দ
  • তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা
  • কর্মচারীবৃন্দ
  • বিজ্ঞপ্তি
  • ডাউনলোড
  • আইন ও সার্কুলার
  • ফটোগ্যালারি
  • প্রকল্পসমূহ
  • যোগাযোগ

০১. নামজারী জমাখারিজ ও জমা একত্রিকরণ

ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান সরকার কর্তৃক নির্ধারিত ফরমে ছবিসহ আবেদনের প্রেক্ষিতে রাষ্ট্রীয় অধিগ্রহণ ও প্রজাস্বত্ত্ব আইন ১৯৫০ এর বিধান মতে নামজারী জমাখারিজ জমাএকত্রিকরণ তথা রেকর্ড সংশোধন করা হয়ে থাকে। এ সেবা পাোয়ার জন্য বর্তমানে ৪৫ কার্যদিবস সময় লাগে। এজন্য খরচ পরবে ২৫০ টাকা।

০২. কৃষি খাসজমি বন্দোবস্ত প্রদান

ভূমিহীন ব্যক্তিদের সরকার কর্তৃক নির্ধারিত ফরমে ছবিসহ আবেদনের প্রেক্ষিতে ১/- টাকা সেলামীতে কৃষি খাসজমি বন্দোবস্ত নীতিমাল অনুযায়ী বন্দোবস্ত প্রদান করা হয়ে থাকে। এর জন্য সহকারী কমিশনার (ভূমি) বরাবরে আবেদন করতে হয়। ভূমিহীন বাছাই, উপজেলাওজেলা কমিটি অনুমোদনের জন্য ৯০ দিন সময় লাগে।

০৩. অকৃষি খাসজমি দীর্ঘ মেয়াদী বন্দোবস্ত প্রদানব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান কর্তৃক আবেদনের প্রেক্ষিতে অকৃষি খাসজমি দীর্ঘ মেয়াদী বন্দোবস্ত নীতিমালা অনুযায় বিভিন্ন ক্যাটাগরীতে বাজার মূল্যে এ বন্দোবস্ত প্রদান করা হয়ে থাকে এজন্য জেলা প্রশাসক বরাবরে আবেদন করতে হয়। সরেজমিনে তদন্ত, রেকর্ডপত্র যাচাই বাছাই এবং ভূমি মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন সহ মোট ৯০ দিন সময় লাগে।

০৪. হাট বাজারে অবস্থিত চান্দিনা ভিটি একসনা বন্দোবস্ত প্রদান

পেরি ফেরী অনুমোদিত হাট বাজার সমূহে অবস্থিত চান্দিনা ভিটি সমূহ প্রকৃত ব্যবসায়ীদেরকে দখল বিবেচনা করে পরিবার প্রতি শধুাত্র একজনকে সব্বোচ্চ ০.০০৫০ একর বা আধা শতক জমি একসনা ইজারা দেয়া হয়ে থাকে। এ জন্য সহকারী কমিশনার (ভূমি) এর নিকট আবেদন করেতে হয়। সরেজমিনে তদন্ত, রেকর্ডপত্র যাচাই বাছাই এবং জেলা প্রশাসকে অনুমোদন সহ মোট ৩০ দিন সময় লাগে।

০৫. সায়রাত মহাল ব্যবস্থাপনা

সায়রাত মহাল বা হাট বাজার, সরকারী পুকুর, লেক, বালু মহাল, ফেরী ঘাট ইত্যাদি বাংলা বছর শেষে দরপত্র আহবানের মাধ্যমে নির্ধারিত মেয়াদের জন্য ইজারা প্রদান করা হয়ে থাকে। ইজারা প্রদানের সময়সীমা ত্ত কার্যক্রম গ্রহনের সময়সীমা দরপত্রের সিডিউলে উল্লেখ থাকে।

০৬. রেকর্ডপত্র ও মৌজা ম্যাপ সংরক্ষন

উপজেলা ভূমি অফিসে এস এ/আর এস খতিয়ান, প্রকাশিত বি এস খতিয়ান ও মৌজা ম্যাপ সংরক্ষনে সহযোগিতা করা হয়ে থাকে।

০৭. ভূমি উন্নয়ন কর আদায়

ইউনিয়ন ভূমি অফিস ভূমি উন্নয়ন কর আদায় করে থাকে।

এছাড়া আরো যেসব কাজ ইউনিয়ন ভূমি অফিস সম্পাদন করে থাকে সেগুলিঃ

·         অর্পিত সম্পত্তি ব্যবস্থাপনা।

·         দেওয়ানী মোকদ্দামা তথ্য বিবরণী প্রস্তুত ও প্রেরণ।

·         রেন্ট সাটিফিকেট মোকদ্দমা পরিচালনা করা।

·         গুচ্ছগ্রাম ও আদর্শ গ্রাম প্রকল্প বাস্তবায়ন কার্যক্রম।

·         আবাসন ও আশ্রয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন।

·         মিস মোকদ্দমা পরিচালনা করা।

·         জরিপ কাজের তদারকি ও পরিচালনা করা।

·         দাবিদারহীন (লা-ওয়ারীশ) সম্পত্তির ব্যবস্থাপনা

·         সিকস্তি-পয়স্তি জমি ব্যবস্থাপনা

·         এল এ কেস নিস্পত্তি করণে সহায়তা করা।

·         জমির শ্রেণী পরীবর্তন করা।

·         রেকর্ড সংশোধন।

·         PO-96, 98,95

·         পরিত্যক্ত ভূ-সম্পত্তি জবর দখল/ উচ্ছেদ

·         সরকারি গাছ-গাছালি সংরক্ষণ / পুরাতন মালামাল সংরক্ষণ

ক্রমিক নং

সেবার নাম

সেবা প্রদানের সময় সীমা

সেবা প্রদানের পদ্ধতি

সেবা প্রদানের স্থান

০১

ভূমি উন্নয়ন কর

(কৃষি ও অকৃষি)

আদায়

০১ জুলাই হতে ৩০ জুন (এক আর্থিক বছর)

সরকার কর্তৃক নির্ধারিত নীতিমালা অনুসারে।

ইউনিয়ন ভূমি অফিস

(সংশ্লিষ্ট)

০২

পেরী-ফেরী ভূক্ত বাজারের অস্থায়ী একসনা লীজ নবায়ন।

অনুর্ধ্ব ১৫ দিন

 

প্রকৃত ব্যবসায়ী ট্রেড লাইসেন্স থাকতে হবে। নীতিমালা অনুযায়ী প্রস্তাব উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে প্রেরণ করা হয়। ইউনিয়ন ভূমি অফিসের প্রতিবেদনের আলোকে লীজের শর্তভঙ্গ না করলে সরকার কর্তৃক নির্ধারিত হারে লীজমানি গ্রহণপূর্বক নবায়ণ করা হয় এবং ডিসিআর প্রদান করা হয়।

ইউনিয়ন ভূমি অফিস,

উপজেলা ভূমি অফিস

০৩

অর্পিত সম্পত্তির নবায়ন

অনুর্ধ্ব ১৫ দিন

ইউনিয়ন ভূমি অফিসের প্রতিবেদনের ভিত্তিতে লীজের শর্তভঙ্গ না করলে সরকারী নীতি মালার আলোকে লীজমানি গ্রহণপূর্বক নবায়ণ করা হয় এবং ডিসিআর প্রদান করা হয়।

ইউনিয়ন ভূমি অফিস,

উপজেলা ভূমি অফিস

মিউটেশন (নামজারী) জমা ভাগ ও জমা একত্রিকরন সংক্রান্ত নিয়মাবলী

মিউটেশনের জন্য সহকারী কমিশনার (ভূমি) বরাবর দরখাস্ত দাখিল করতে হবে।

মিউটেশনের আবেদনের সাথে নিম্ন বর্ণিত কাগজপত্র দাখিল করতে হবে।

(ক) প্রযোজ্য ক্ষেত্রেঃ

১। ক্রয় ও প্রয়োজনীয় বায়া দলিলের কপি।

২। ওয়ারিশ সনদপত্র  

৩। হেবা দলিলের কপি এবং সকল রেকর্ড বা পর্চা খতিয়ানের সার্টি ফাইড কপি।

৪। সর্বশেষ জরিপের পর থেকে বায়া /পিট দলিল এর সার্টিফাইড/ফটোকপি

৫। ভূমি উন্নয়ন কর পরিশোধের দাখিলা । 

৬। তফসিল বর্ণিত চৌহদ্দিসহ কলমি নকসা ০১ কপি।

(খ) মিউটেশনের খরচঃ

(ক) আবেদনের জন্য কোর্ট ফি ২০.০০ (বিশ) টাকা
(খ) নোটিশ জারি ফি ৫০.০০ (পঞ্চাশ) টাকা
(গ) রেকর্ড সংশোধন বা হালকরণ ফি ১০০০.০০ (এক হাজার) টাকা
(ঘ) প্রতিকপি মিউটেশন, খতিয়ান সরবরাহ বাবদ ১০০.০০ (একশত) টাকা

সর্বমোট= ১১৭০/- (এক হাজার একশত সত্তর) টাকা আদায় করা হবে।

বিঃ দ্রঃ

দরখাস্ত জমা দেওয়ার দিন থেকে ৪৫ দিনের মধ্যে মিউটেশন কেস নিষ্পত্তি না হলে এবং উল্লেখিত খরচের অতিরিক্ত ফি কেউ দাবী করলে সহকারী কমিশনার (ভূমি)/ উপজেলা নির্বাহী অফিসার/রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর/অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) অথবা জেলা প্রশাসকের সাথে যোগাযোগ করুন।

 

ভূমি উন্নয়ন করের দাবী নির্ধারনঃ

ইউনিয়ন ভূমি অফিস

বিগত অর্থছরের দাবী

বিগত অর্থবছরের আদায়

বিগত অর্থবছরে আদায়ের হার

বর্তমান অর্থবছরের দাবী

দাবী বৃদ্ধি (টাকায়)

দাবী বৃদ্ধির হার

মন্তব্য

বাজনাব       

 

ইউনিয়ন ভূমি অফিস

বিগত অর্থছরের দাবী

বিগত অর্থবছরের আদায়

বিগত অর্থবছরে আদায়ের হার

বর্তমান অর্থবছরের দাবী

দাবী বৃদ্ধি (টাকায়)

দাবী বৃদ্ধির হার

মন্তব্য

বাজনাব       

ভূমি উন্নয়ন করের (সাধারণ) দাবী আদায়ঃ

ক্রমিক

নং

ইউনিয়ন ভূমি অফিস

বর্তমান অর্থছরের দাবী

বিবেচ্য মাসে আদায়ের টার্গেট

বিবেচ্য মাসে আদায়

বিবেচ্য মাসে আদায়ের হার

বিগত মাসে আদায়

মন্তব্য

০১

বাজনাব      

নামজারী-জমাখারিজের আবেদন নিষ্পত্তিঃ

ক্রমিক নং

ইউনিয়ন ভূমি অফিস

বিগত মাস পর্যমত্ম পেন্ডিং আবেদনের সংখ্যা

বিবেচ্য মাসে দায়ের

মোট আবেদনের সংখ্যা

বিবেচ্য মাসে নিষ্পত্তি

নিষ্পত্তির হার

অনিষ্পন্ন আবেদনের সংখ্যা

০১

বাজনাব      

কৃষি খাস জমি বন্দোবস্ত

ক্রমিক নং

ইউনিয়ন ভূমি অফিস

বর্তমানে বন্দোবসত্মযোগ্য কৃষি খাস জমির পরিমান

বিবেচ্য মাসে বন্দোবসত্মকৃত কৃষি খাস জমির পরিমান

বিবেচ্য মাসে উপকারভোগী

পরিবারের সংখ্যা

কবুলিয়ত সম্পাদন হয়েছে এমন পরিবারের সংখ্যা

অবৈধ দখলীয় কৃষি খাস জমির পরিমান

মামলা মোকদ্দমার জড়িত কৃষি খাস জমির পরিমান

বন্দোবস্তযোগী নয় এরূপ কৃষি খাস জমির পরিমান

০১

 

বাজনাব       

অর্পিত সম্পত্তি ব্যবস্থাপনাঃ

ক্রমিক নং

ইউনিয়ন ভূমি অফিসের নাম 

অর্পিত সম্পত্তির পরিমান

অর্পিত সম্পত্তির ইজারা

বিগত অর্থবছরের দাবী ও আদায়

বর্তমান অর্থবছরের দাবী ও আদায়

মন্তব্য

বকেয়া

হাল

মোট

   

 

 

প্রত্যর্পনযোগ্য

অনিবাসী

ইজারাভূক্ত

ইজারা

বিহীন

দাবী

আদায়

হার

দাবী

বিবেচ্য মাস পর্যন্ত আদায়

হার

 

০১

 

বাজনাব           

বিবিধ পাবলিক পিটিশন নিষ্পত্তিঃ

ক্রঃ

 নং

ইউনিয়ন ভূমি অফিস

বিগত মাস পর্যন্ত পেন্ডিং পাবলিক পিটিশনের সংখ্যা

বিবেচ্য মাসে আগত পাবলিক পিটিশনের সংখ্যা 

বিবেচ্য মাসে নিষ্পত্তিকৃত পাবলিক পিটিশনের সংখ্যা

মাস শেষে পেন্ডিং পাবলিক পিটিশনের সংখ্যা

মন্তব্য

০১

 

বাজনাব     

. জনদুর্ভোগ লাঘব ও সেবার মান উন্নয়নে গৃহীত বিশেষ উদ্যোগঃ সহকারী কমিশনার (ভূমি) এর নিকট সরাসরি স্বাক্ষাতের মাধ্যমে যে কোন অভিযোগ/ আবেদন তাৎক্ষণিক ভাবে নিষ্পত্তির ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

ভূমি মিউটেশন বা নামজারী কি?

ভূমি ব্যবস্থাপনায় মিউটেশন বা নামজারী একটি অতীব গুরুত্বপূর্ণ প্রক্রিয়া। জমি ক্রয় বা অন্য কোন উপায়ে জমির মালিক হয়ে থাকলে হাল নাগাদ রেকর্ড সংশোধন করার ক্ষেত্রে মিউটেশন একটি অপরিহার্য নাম। ইংরেজী মিউটেশন (Mutation) শব্দের বাংলা অর্থ হলো পরিবর্তন। আইনের ভাষায় এই মিউটেশন শব্দটির অর্থই হলো নামজারী। নামজারী বা নাম খারিজ বলতে নতুন মালিকের নামে জমি রেকর্ড করা বুঝায়। অর্থাত্ পুরনো মালিকের নাম বাদ দিয়ে নতুন মালিকের নামে জমি রেকর্ড করাকে নামজারী/নাম খারিজ বলে। ভূমি মালিকানার রেকর্ড বা খতিয়ান বা স্বত্বলিপি হালকরণের জন্য জরিপ কার্যক্রম চূড়ান্ত করতে দীর্ঘ সময়ের প্রয়োজন হয়। যে সময়ের মধ্যে উত্তরাধিকার সূত্রে, এওয়াজ সূত্রে বিক্রয়, দান, খাস জমি বন্দোবস্ত ইত্যাদি ভূমি মালিকানার পরিবর্তন প্রতিনিয়ত ঘটতে থাকে। যে কারণে প্রতিনিয়ত পরিবর্তনশীল ভূমি মালিকানার রেকর্ড হালকরণের সুবিধার্থে জমিদারী অধিগ্রহণ ও প্রজাস্বত্ব আইন ১৯৫০ এর ১৪৩ ধারায় কালেক্টরকে (জেলা প্রশাসক) ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। এই ক্ষমতা বলে জমা, খারিজ ও নামজারী এবং জমা একত্রিকরণের মাধ্যমে রেকর্ড হাল নাগাদ সংরক্ষণ করা হয়।

কমিশনার (ভূমি) ভূমি ব্যবস্থাপনা ম্যানুয়েল ১ঌঌ০ এর ২০ অনুচ্ছেদ বলে নামজারী বা মিউটেশনের দায়িত্ব পালন করে থাকেন। পূর্বে নামজারীর বা মিউটেশনের দায়িত্ব উপজেলা রাজস্ব বা অফিসার বা সার্কেল অফিসার (রাজস্ব) পালন করতেন।
নামজারী বিষয়ক অধিকার:
•নামজারীর মাধ্যমে নতুন মালিকানা তথা হোল্ডিং সৃষ্টি করার অধিকার।
(১৯৫০ সালের স্টেট একুইজিশন এন্ড টেনান্সি এক্টের ১৪৩ ধারা )
•নির্ধারিত কোর্ট ফি দিয়ে সহকারী ভূমি কমিশনারের নিকট নাম জারীর জন্য আবেদন করার অধিকার।
(ভূমি ব্যবস্থাপনা ম্যানুয়াল ১৯৯০)
•সংশোধিত খতিয়ান সংগ্রহের অধিকার
(ভূমি ব্যবস্থাপনা ম্যানুয়াল ১৯৯০)
•ষড়যন্ত্র করে কিংবা ভুলক্রমে অন্যের নামে নামজারী হয়ে থাকলে তা সংশোধনের অধিকার।
(১৯৫০ সালের স্টেট একুইজিশন এন্ড টেনান্সি এক্টের ১৪৩ ধারা )
•রাজস্ব অফিসারের আদেশে অসন্তুষ্ট হলে তার বিরুদ্ধে জেলা জজ কিংবা অতিরিক্ত জেলা জজ (রাজস্ব)-এর নিকট মামলা করার অধিকার। (১৯৫০ সালের স্টেট একুইজিশন এন্ড টেনান্সি এক্ট ১৪৭ ধারা)
•আপীলের জন্য সময় পাবার অধিকার।
(১৯৫০ সালের স্টেট একুইজিশন এন্ড টেনান্সি এক্ট ১৪৮ ধারা)
•রিভিশনের অধিকার (যদি আপীল করা না হয়ে থাকে)
(১৯৫০ সালের স্টেট একুইজিশন এন্ড টেনান্সি এক্ট ১৪৭ ধারা)
•রিভিউ পুর্নবিবেচনার অধিকার
(১৯৫০ সালের স্টেট একুইজিশন এন্ড টেনান্সি এক্টের ১৪৯ ধারা।)
•জমির ক্রেতা যদি সমবায় সমিতি বা হাউজিং কোম্পানী হয় তাহলে নামজারীর অধিকার।
(১৯৯০ সালের ভূমি ব্যবস্থাপনা ম্যানুয়ালের ৩২৭,৩২৮ অনুচ্ছেদ)
লংঘন:
•নামজারীর মাধ্যমে জমির মালিকানা সৃষ্টি করতে না দেওয়া।
•সংশোধিত খতিয়ানের কপি সংগ্রহ করতে চাইলে তা প্রদান না করা।
•নামজারীর সংশোধনের জন্য সময় না দেওয়া।
•আপিলের জন্য সময় ও সুযোগ না দেওয়া।
•রিভিশনের জন্য সময় ও সুযোগ না দেওয়া।
•রিভিউ এর জন্য সময় ও সুযোগ না দেওয়া।
সংশ্লিষ্ট প্রতিকার:
•আপিল
•রিভিশন
•রিভিউ
প্রতিকারের জন্য কোথায় যেতে হবে?
•থানা সেটেল্টমেন্ট অফিসে যেতে হবে।
•সহকারী কমিশনার (ভূমি) এর বরাবরে নামজারীর জন্য লিখিত দরখাস্ত দাখিল করতে হবে।
•বড় এবং জটিল নামজারীর ক্ষেত্রে আইনজীবী নিয়োগ করলে ভালো হয়।

আপিলের সুযোগ আছে কি? '
আছে।
নামজারীর গুরুত্ব ও আইনগত মূল্য:
জমিদারী অধিগ্রহণ এবং প্রজাস্বত্ব আইন ১৯৫০ এর ১৪৩ ধারা মতে -
•নামজারী আদেশের ভিত্তিতে সংশোধিত খতিয়ানের সৃষ্টি হয়৷ সরকারী রেকর্ডের ভিত্তিতে মালিকের নাম প্রতিস্থাপিত হয়৷ সবচেয়ে বড় কথা হলো মালিকানা হালনাগাদ (নিশ্চিত) হয়৷
•নামজারীর আদেশ ভুক্ত জমিটুকু পূর্বের জোত জমা থেকে খারিজ বা কর্তন হয়ে আবেদনকারীর নামে নতুন হোল্ডিং এর সৃষ্টি হয়৷ কোন ব্যক্তি জমি ক্রয় বা অন্য কোন ভাবে জমি প্রাপ্ত হওয়ার পর নামজারী না হওয়া পর্যন্ত তা পূর্বের মালিকের নামেই (হোল্ডিং) থেকে যায়৷ এর ফলে পূর্বের মালিক ইচ্ছা করলে প্রতরণামূলক ভাবে জমিটি একাধিকবার বিক্রি/হস্তান্তরের সুযোগ নিতে পারে৷
•নামজারী আদেশ মূলে সৃষ্ট সংশোধিত খতিয়ান এর কপি সহকারী ভূমি কমিশনার এর মাধ্যমে বা ভূমি মালিকের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট সহকারী সেটেল্টমেন্ট অফিসার বা জরিপ কালে বুঝারত/তসদিক/আপত্তি/আপীল স্তরে জরিপ কর্তৃপক্ষের নিকট পেশ করা হলে ভূমি ব্যবস্থাপনা ম্যানুয়েল ১৯৯০ এর ৩২০ অনুচ্ছেদ অনুসারে জরিপ কর্তৃপক্ষ সংশোধিত খতিয়ানের ভিত্তিতে নতুন করে রেকর্ড সৃষ্টি করে থাকেন৷
•নিজের জমি নিজের নামে নামজারী না করলে অন্য কোন সহ শরীকে বা পাশ্বᐂবর্তী জমির কোন মালিক তার নামে জমি নামজারী করে নিতে পারে৷
•নামজারী মূলে পৃথক হোল্ডিং খুললে খাজনাদি পরিশোধ করা সহজ হয়৷
•ব্যাংক ঋণ, গৃহ নির্মান ইত্যাদি ঋণ নেয়ার জন্য নামজারী একান্ত প্রয়োজন৷
•তাই ভূমির মালিকানা অর্জনের সাথে সাথে তা নামজারীর মাধ্যমে নিজের নামে রেকর্ড সংশোধন করে হোল্ডিং খুলে জমি জমার রেকর্ড পত্র সঠিকভাবে সংরক্ষণ করা উচিত৷
নামজারীর বিভিন্ন পদ্ধতি:
ভূমির মালিকানা যেমন বিভিন্ন ভাবে অরর্র্জিত হয় তেমনি নামজারীর ধরনও বিভিন্ন পদ্ধতিতে হয়ে থাকে।
যেমন:
•হস্তান্তর দলিল (এল.টি নোটিশ) মূলে নামজারী
•সার্টিফিকেট মূলে নামজারী
•এল.এ মোকদ্দমার ভিত্তিতে নামজারী
•আদালতের ডিক্রি মূলে নামজারী
•উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত সম্পত্তির নামজারী
•আবেদনের ভিত্তিতে নামজারী

ছবি নাম মোবাইল
শাহজাহান মজুমদার 0
কামরুল হাসান ভূইয়া ০১৮৩১৯৯৩৩০৫

ছবি নাম মোবাইল
কামরুল হাসান ভূইয়া ০১৮৩১৯৯৩৩০৫

ছবি নাম মোবাইল

মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর কার্যালয়ের মাধ্যমে আশ্রয়ন/আবাসন প্রকল্প সমূহ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ভূমি বরাদ্দ সহ অন্যান্য কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়ে থাকে।

ক) আশ্রয়ন বা গুচ্ছগ্রাম প্রকল্প

খ) ভুমিহীণদের খাস জমি বন্দোবস্ত প্রদান

গ) ইএলআরএস প্রকল্প

ইউনিয়ন ভূমি অফিস
ধামতী ইউপি কমপ্লেক্স ভবন,
পোঃ ধামতী, উপজেলাঃ দেবিদ্বার
জেলাঃ কুমিল্লা।

 

 

যোগাযোগঃ

ছবিনামপদবীমোবাইল নম্বর
আলী আহম্মদ সরকারইউনিয়ন ভূমি সহকারি কর্মকর্তা০১৮২০-০২১৬৬৩
মনোরঞ্জন দাসঅফিস সহায়ক০১৭১৪-৭৭৮০৪৯
নিতাই চন্দ্র দাসঅফিস সহায়ক০১৮১৪- ১৩৫১৯৪